বাজার-রেস্তোরাঁয় কেউ মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি

রাজধানীর উত্তরখানে বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে চলছে হাট-বাজার, চায়ের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁ। ক্রেতা-বিক্রেতা থেকে শুরু করে কেউই মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি।

টিকার সনদ নিয়ে হোটেলে খাওয়ার বিষয়টি মানছেন না কেউই। অনেকের মুখে মাস্ক থাকলেও ভ্যাকসিন সনদ আছে কিনা তা যাচাই করাসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধির ব্যাপারে উদাসীন কর্তৃপক্ষও।

যদিও সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধে হোটেল রেস্তোরাঁয় খাবার সংগ্রহ ও বসে খেতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাসহ মাস্ক পরিধান করা, করোনার টিকা সনদ দেখানো বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

সরেজমিন দেখা যায়, উত্তরখান শাহ কবির মাজার চৌরাস্তা বাজার, চালাবন চৌরাস্তা, কাঁচকুড়া, মৈনারটেক, ফায়দাবাদ, চামুরখান, চাঁনপাড়া, আটিপাড়া, মাস্টারপাড়াসহ বিভিন্ন জায়গায় চায়ের আড্ডা চলছে। রেস্তোরাঁগুলোতে ভ্যাকসিন সনদ নিয়ে কেউ খাবার খাচ্ছেন না। এ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন স্থানীয় সচেতন মহল।

শাহ কবির মাজার গেটের একটি রেস্তোরাঁয় কর্মরত আল আমিনের সঙ্গে কথা হলে তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, স্বাস্থ্যবিধির ব্যাপারে হোটেল কর্তৃপক্ষের নানা ত্রুটি রয়েছে- এটা অস্বীকার করার উপায় নাই। তবে আমরা আমাদের সাধ্যমতো চেষ্টা করছি সরকারি বিধিনিষেধ বাস্তবায়ন করতে।

তিনি আরও বলেন, করোনার টিকা সনদ দেখানোর বিষয়টি কাস্টমারকে বলতে গেলে অনেকেই বিব্রতবোধ করেন। পার্সেল নিয়ে যেতে বললে অনেকে রেগে যান। যে কারণে করোনার এ কঠিন সময়েও ভেতরে খাবার বিক্রি করতে হচ্ছে এবং টিকার বিষয়টি কম গুরুত্ব পাচ্ছে।

হোটেলে খেতে আসা দুজন ব্যক্তির সঙ্গে কথা হলে তারা বলেন, ব্যাচেলর থাকি, আমাদের হোটেলেই খেতে হয়। সরকারের বিধিনিষেধ সম্পর্কে অবগত আছি, কিন্তু আমাদের কিছু করার নেই। খাবার খেতে হলে হোটেলেই আসতে হবে। তাছাড়া বাসায় পার্সেল করে খাবার নিয়ে গিয়ে খাওয়া ঝামেলা। তাই আমরা হোটেলেই খেয়ে যাই।

টিকার সনদ আছে কিনা জানতে চাইলে তারা বলেন, সনদ বাসায়। সব সময় তো আর সনদ নিয়ে বের হওয়া যায় না।

উত্তরখান থানার ওসি আব্দুল মজিদ যুগান্তরকে জানান, সরকারি বিধিনিষেধ আরোপের পর থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করায় এ পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ২২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। বিধিনিষেধ মেনে চলার জন্য সব সময় প্রচার চালানো হচ্ছে।

বিভিন্ন হোটেল ও রেস্টুরেন্টে গিয়ে থানার একাধিক অফিসার খোঁজখবর নিচ্ছেন বলেও জানান তিনি।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*